বজ্জাত বস রোমান্টিক হাজবেন্ড !! Part- 11

তিথিঃ বজ্জাত টার মাথায় সমস্যা আছে হুমম এই জন্য এই রকম রাগে ইচ্ছে তো করে তাকে ইচ্ছে মতো উলপাউটার দিয়ে ধুই…ইসসসস যদি এক বার পারতাম কি না শান্তি পাইতাম..😁😄 বজ্জাত টা কে ধুয়ে ছাদে শুকিয়ে শুটকি বানাতে পারতাম 😃আল্লাহ প্লিজ আমার এই আশা টা রাখো প্লিজ প্লিজ

তিথি নিজে নিজে বকবক করতে থাকে…র রেডি হয়ে নেয়…আবিরের তো পুরো মাথা খারাপ হয়ে গেছে তিথির স্টুপিড কথা গুলো শুনে…আবিরের খুব ইচ্ছে করেছিলো ওই সময় তাকে তুলে দুইটা আচার মারতে…সব সময় উলটা পালটা কথা বলে…

আবিরঃ আমি পুরো সিউর যে এই মেয়ে পাবনা থেকে এসেছে…আস্তা একটা স্টুপিড মেয়ে সব সময় ফাজলামি না হয় তার স্টুপিড কথা গুলো…উফফ এক বার মিটিং টা শেষ হোক তাহলে বাঁচি আমি…বাসায় গিয়ে আম্মুকে বলবো মেয়েটাকে বিদায় করতে…

আবির অনেক ক্ষন চিন্তা করে পরে অনেক ক্ষন পর আবির গিয়ে ফ্রেশ হয়ে রেডি হয়ে নেয়…তিথি রেডি হয়ে আবিরের রুমের সামনে পাইচারি কাটে যে যাবে কি না যাবে না…

তিথিঃ উফফ আল্লাহ যাবো😕😕😕যদি আমাকে মারে বা বকা দেয়…এক মিনিট তিথি ওই বজ্জাত টা তুকে মারবে এত বড় সাহস এখনো ওর হয় নাই…যদি আমাকে ওই বজ্জাত টা ধমক দেয় তাহলে তো আমি ওকে খুন করবো হুম..এখনো ও আমাকে চিনে না যে আমি কি জিনিস 😕

আবির দরজা খুলে তিথির কথা গুলো শুনে আবির পুরো অবাক আবির এই মেয়েকে কি কখনো বুজে উঠতে পারবে না…এত স্টুপিড কেউ কি ভাবে হয়….

আবিরঃ মিস তিথি আপনি আসলে মানুষ তো না এলিয়েন😡😠

তিথি পিছনে ফিরে দেখে আবির..আবিরের কথায় তিথি রেগে যায় র বলে

তিথিঃ স্যার আপনার সাহস হয় কি করে আমাকে এলিয়েন বলার😠😠দেখুন স্যার যদি আমাকে এই রকম উলটা পালটা বলেন তাহলে আমি কিন্তু আজকে মিটিং এ যাবো না হুম র আপনার মিটিং এর ১৩ টা বাজিয়ে ছাড়বো বলে রাখলাম

আবিরঃ(উফফ আল্লাহ এই মেয়েকে নিয়ে কি যে করি😥😥) ওকে সরি চলো

তিথিঃ গুড নিজের দোষ শিকার করার জন্য…চলেন

আবির কিছু বলতে যাবে আবার বলে না কারণ সে জানে তিথির সাথে কথা বলা মানে পাথরের সাথে নিজের মাথা বারি দেওয়া যে মেয়ে একটা বললে ১০০ টা বলে রাখে তাই আবির র কিছু বলে না..আবির ড্রাইভ করতে থাকে তিথি বাহিরে তাকিয়ে আছে..

অনেক ক্ষন পর আবির র তিথি একটা রেস্টুরেন্টে আসে র ওখানে মিটিং শুরু করে…আবির তাদের সাথে কথা বলছে তখন তিথি বার বার তাদের সাথে আসা মেয়েটিকে ঘুরে ঘুরে দেখছে কারণ মেয়েটি অনেক মোটা র একটা ছোট জামা পরেছে পুরো হাটু দেখা যাচ্ছে…তিথি মুখ চেপে চেপে হাসছে তা আবির খেয়াল করে…তিথির কানের কাছে এসে ফিসফিসিয়ে জিজ্ঞেস করে

আবিরঃ পাগলের মতো হাসছো কেন?

তিথিঃ স্যার এই মুটকি কি কাপড় পরেছে দেখেছেন😆😆পুরো ডাইনি লাগছে

আবিরঃ জাস্ট শেটাপ…

তিথিঃ আরে

আবিরঃ তিথি প্লিজ একটা ফালতু কথা বলবে না…যদি বলো তাহলে আমার চেয়ে খারাপ র কেউ হবে না,…

তিথি চুপচাপ বসে থাকে…আবির তার মিটিং শেষ করে তাদের সাথে লাঞ্চ শেষ করে বের হয়…তিথি অনেক ক্ষন চুপ ছিল তার মনে হচ্ছে তার ধম বন্ধ হয়ে আসছে র না পেরে বলে

তিথিঃ স্যার আমরা এখন কথায় যাবো

আবিরঃ কথায় আবার কি হোটেলে যাবো ফ্রেশ হয়ে বের হয়ে যাবো

তিথিঃ স্যার আমরা কি আজকে চলে যাবো

আবিরঃ আপনি চাইলে থাকতে পারেন নো প্রবলেম..কিন্তু আমি আজকে চলে যাবো

তিথিঃ স্যাররররর

আবিরঃ উফফ কি(কানে হাত দিয়ে)

তিথিঃ আপনি আমাকে একা পেলে যাবেন আপনার সাহস তো কম না😡

আবির কিছু র বলে না.আবির জানে যদি সে কিছু বলে তাহলে এই মেয়ে তার পুরো মাথা খেয়ে পেলে তাই সে চুপ থাকে র ড্রাইভ করতে থাকে অনে ক্ষন পর তারা হোটেলে চলে আসে..তারা হোটেলে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে যাওয়ার জন্য সব পেকিং করে নেয়…আবির তার র তিথির লাকেজ গাড়িতে রাখে…আবির খেয়াল করে তিথি হোটেলের পাশে কিছু বাচ্চাদের সাথে খেলছে আবির মুচকি হাসে

আবিরঃ এই মেয়ে কি..পুরো বাচ্চা র অনেক কিউট ও

তিথি বাচ্চাদের সাথে খেলছে র আবিরের দিকে এসে বলে

তিথি স্যার চলেন আপনি ও খেলবেন

আবিরঃ না আমি খেলবো না.. তিথি দেরি হচ্ছে চলো

তিথি না চাইতে ও যেতে হয়…তিথি গিয়ে গাড়িতে বসে আবির ড্রাইভ করতে থাকে….তিথি অনেক ক্ষন ধরে কথা বলে যাচ্ছে আবির উত্তর দিচ্ছে না…তিথি অনেক টা রেগে বলে

তিথিঃ স্যাররর আপনার কান কি সত্যি সত্যি বয়রা হয়ে গেছে ক্ষন থেকে আমি কথা বলে যাচ্ছি আপনি উত্তর দিচ্ছেন না😡

আবিরঃ তিথি প্লিজ চুপ থাকো র ড্রাইভ করতে দাও..তোমার স্টুপিড কথা গুলো শুনার র উত্তর দেওয়া আমার দরকার মনে করি না

তিথিঃ আ….পনি তো আস্তা শয়তানের দাদা..

আবিরঃ কি😱😱এই মেয়ে কি যা তা বলছো

তিথিঃ সত্যি কথা বললে খুব গায়ে লাগে তাই না

আবিরঃ মিস তিথি আপনি যে একটা পাগল আমার র কোনো সন্দেহ নাই..

তিথিঃ কি😡😡আমি পাগল বজ্জাত ছেলে তোর সাহস হয় কি করে আমাকে পাগল বলার😡

আবির ড্রাইভ করছে র তিথির সাথে কথা বলতে বলতে গাড়ি টা একটা গাছের সাথে ধাক্কা লাগে…তিথি একটু ধাক্কা খাওয়ায় তার মাথা টা একটু কেটে যায়…আবির এর কপালে ও লাগে…চারপাশে অন্ধকার রাস্তায় তেমন কোন মানুষ নাই…পুরো গ্রাম সাইট এলাকা….গাড়ির তো অবস্থা পুরো খারাপ,,আবির মাথা টা তুলে দেখে গাড়ি গাছের সাথে ধাক্কা লাগায় অনেক টা ভেঙ্গে গেছে র পাশ ফিরে তাকিয়ে দেখে তিথির কপাল টা একটু কেটে গেছে আবির তিথিকে একটু ঝাকুনি দেয় তিথি উঠে চারপাশ টা দেখে র বুজতে পারে তাদের এক্সিডেন্ট হয়েছে

আবিরঃ তুমি ঠিক আছো তো

তিথিঃ আপনি ঠিক করে গাড়ি ও চালাতে পারেন না😡😡😠আজকে যদি আমার কিছু হয়ে যেতো তখন 😠😠আমার তো এখনো বিয়ে ও হয় নাই তার আগে যদি আমি মরে যেতাম আমার হবু হাজবেন্ড এর কি হতো 😠

আবিরঃ তোমার এই ফালতু বকবক এর জন্য আজকে এক্সিডেন্ট টা হয়েছে সব সময় ফালতু কথা র ফালতু চিন্তা ভাবনা…আজকে যদি তোমার কিছু হতো না তোমার হবু হাজবেন্ড সারাজীবনের জন্য বেঁচে যেত এই রকম একটা বদমাশ,স্টুপিড,র পাগল মেয়ের হাত থেকে😡

তিথিঃ কি বললে আমি কি?😡😡

আবিরঃ কেন কানে কি তুমি ও কম শুনো নাকি যে আবার বলতে হবে..

তিথিঃ এনাকন্ডা,কালো কুমির,কান কাটা বিড়াল উফফ যখনই এই বজ্জাত টাকে কিছু বলতে যাবো তখন সব গালি মাথায় কেন আসে না বুজি না বাপু..

আবির অনেক বিরক্তি হয়ে গাড়ি থেকে নেমে যায় তিথির বকবক আবিরের কাছে এখন বিষ এর মতো লাগছে…তিথি ও নেমে যায়….আবির গাড়ির অবস্থা দেখে বুজতে পারে যে এই গাড়ি করে তারা র যেতে পারবে না…চারপাশে একটু তাকিয়ে দেখে রাস্তাটা তেমন ভালো ও না…অনেক শান্ত সব জায়গায়..নিরাপদ মনে হচ্ছে না এই জায়গাটা….এমন জায়গায় গাড়িটা এক্সিডেন্ট হলো যেখানে কারো সাহায্য ও পাওয়া যাবে না…

আবিরঃ এই জায়গাটা নিরাপদ নয়..সামনে চলো দেখি সাহায্য পাই কি না কারো কাছে..

তিথি র কিছু না বলে আবিরের সাথে হাঁটা শুরু করে..আবির র তিথি রাস্তায় হাঁটতে থাকে..তিথি চারপাশে একটু চোখ বলিয়ে দেখে যে অনেক অন্ধকার র ভয়ানক জায়গা..তিথি আবিরের হাত টা আকড়ে ধরে রাখে আবির একটু ও অবাক হয় নাই কারণ সে বুজতে পারছে যে তিথি ভয় পাচ্ছে তাই তার হাত ধরে আছে…

আবিরঃ ভয় পাচ্ছো তুমি??

তিথিঃ আমি কেন ভয় পাবো আজিব

আবিরঃ তাহলে আমার হাত এই ভাবে ধরে রেখেছো যে

তিথিঃ আমি তো আপনার জন্য ধরেছি আপনি ভয় পাবেন তাই

আবিরঃ 😅😅😄😃

তিথিঃ আমি হাসার কি বলেছি যে দাঁত সব দেখিয়ে হাসছেন..

আবিরঃ তোমার সাথে কথায় পারা যাবে না..পুরো কথায় দোকান

তিথিঃ কি বললেন আমি….😡😡

আবিরঃ কিছু না হাঁটো

তিথি আবিরের হাত ছেড়ে দেয় আবির একটু সামনে হাঁটছে র তিথি একটু পিছনে

আবির র তিথি অনেক হাঁটছে কিন্তু আশে পাশে তারা এমন কিছু দেখছে না যে সাহায্য চাইতে পারবে …তিথি হাঁটতে হাঁটতে একটা পাথরের সাথে ধাক্কা খেয়ে পরে যায়

তিথিঃ আয়ায়ায়ায়ায়া

তিথির চিৎকার শুনে আবির পিছনে ফিরে তাকিয়ে দেখে তিথি রাস্তায় বসে নিজের পায়ে হাত দিয়ে আছে..আবির তিথির কাছে যায় র দেখে পা টা একটু কেটে গেছে আবির তার পকেট থেকে রুমাল বের করে তিথির পায়ে বেধে দেয়…তিথি অনেক চেস্টা করে উঠার কিন্তু ব্যাথায় সে উঠতে পারছে না…আবির র কিছু না ভেবে তিথিকে কোলে নেয় র হাঁটতে থাকে

আবিরঃ ঠিক করে হাঁটা ও শিখো নাই…শুধু বকবক করতে শিখেছো

তিথিঃ এক তো আমি পায়ে ব্যাথা পেয়েছি র আপনি তার মধ্যে আমাকে বকা দিচ্ছেন😭😭😭😭আম্মুইইইইইইইইইই

আবিরঃ চুপ একদম র এক বার যদি এই ন্যাকা কান্না করো তাহলে কোল থেকে ঠাসস করে ফেলে দিবো যাতে কোমড় টা ও ভেঙ্গে যায়…

তিথিঃ (শয়তান,বদমাশ,এনাকন্ডা,কালো কাঁঠাল এক মিনিট কালো কাঁঠাল কি আছে😕😕হয়তো আছে কারণ বজ্জাত বসটা কে তো এমন টাই লাগে😆😅)

আবিরঃ যদি মনে মনে আমাকে গালি দেওয়া শেষ হয় তাহলে চুপ করে থাকো

তিথিঃ স্যার আপনি কি করে জানলেন যে আমি আপনাকে অনেকককক গালি দিচ্ছি

আবিরঃ😡😡😡😡😡😡😠😠😠(তিথির দিকে তাকিয়ে)

তিথি চুপ হয়ে যায়….আবির অনেক ক্ষন তিথিকে কোলে নিয়ে হাঁটছে তার অবস্থা তো পুরো খারাপ কারণ একটা মানুষ কে এত সময় কোলে নিয়ে হাঁটা সম্ভব নয়…তিথি তো বেশ মজা নিচ্ছে তার হাঁটতে একটু ও ইচ্ছে করে নাই ওই সময়…

অনেক হাঁটার পর আবির খেয়াল করে একটা ছোট গ্রাম সেখানে কিছু বাতি জ্বলছে আবির একটু খুশি হয়ে সেখানে যায়…

চলবে………